প্রচ্ছদ > ক্যারিয়ার > বাড়তি আয় > মাশরুম চাষে স্বাবলম্বী
মাশরুম চাষে স্বাবলম্বী

মাশরুম চাষে স্বাবলম্বী

ওবায়দুল হান্নান রিয়াজ :::
দিন দিন মাশরুমের চাহিদা বৃদ্ধি পাচ্ছে। এ চাহিদার দিকে লক্ষ রেখে দেশে বেশ কিছু উদ্যোক্তা তাঁদের গড়ে তুলছেন মাশরুম খামার। মাশরুম ব্যবসা করে স্বাবলম্বী হয়েছেন ডেইনটি মাশরুম খামারের স্বত্বাধিকারী মোহাম্মদ ইলিয়াছ। তিনি বলেন, ‘বাঁশ দিয়ে ওপরের দিকে এক ফুট অন্তর পাঁচ-ছয়টি মাচা তৈরি করে মাশরুম চাষ করা যায় বলে খুব বেশি জায়গার প্রয়োজন হয় না। এ ছাড়া খরচ ও পরিশ্রম কম বলে যে কেউ মাশরুম চাষ করে স্বাবলম্বী হতে পারেন।’

ক্যারিয়ার হিসেবে
মাশরুম চাষ হতে পারে স্বাবলম্বী হওয়ার অন্যতম মাধ্যম। দেশে মাশরুম চাষ আরো ছড়িয়ে দিতে সরকার ঋণদান কার্যক্রমসহ বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ গ্রহণ করছে। এ প্রসঙ্গে মোহাম্মদ ইলিয়াছ বলেন, ‘মাশরুম চাষে সরকার যদি উন্নত প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা ও গৃহীত পদক্ষেপ বাস্তবায়ন করতে পারে, তাহলে ভবিষ্যতে দেশের চাহিদা পূরণ করে বিদেশে রপ্তানি করেও প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন সম্ভব হবে।’ তিনি আরো জানান, তাজা মাশরুম বিক্রি করতে না পারলেও অসুবিধা নেই। পরে শুকিয়ে বা পাউডার বানিয়েও বিক্রি করা যায়।

উৎপাদন প্রক্রিয়া
মাশরুম উৎপাদন করার জন্য প্রথমে বীজ সংগ্রহ করতে হয়। তারপর বীজের দুইপাশ কেটে দৈনিক কমপক্ষে তিনবার পানি স্প্রে করে পাঁচ-সাত দিনের ভেতর মাচায় মাটির মধ্যে সারিবদ্ধভাবে বসিয়ে দিতে হয়। বীজ লাগানোর পর দিনে তিন-চারবার পানি দিতে হয়। বীজ লাগানোর পাঁচ-সাত দিন পর খাওয়ার উপযুক্ত হয়। প্রতি বীজ থেকে মাসে সাধারণত তিন থেকে পাঁচবার ফলন পাওয়া যায়।

ঝুঁকি
সব ব্যবসাতেই ঝুঁকি থাকে। মাশরুমও ব্যতিক্রম নয়। মাশরুম চাষ করে লাভবান হতে হলে চাষের স্থানের তাপমাত্রা ঠিক রাখতে হবে। সাধারণত ছায়াঘেরা পরিবেশে ১৮ থেকে ৩০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় মাশরুম ভালো হয়। উপযুক্ত তাপমাত্রার অভাবে মাশরুম ফলন ব্যাহত হয়। এ ছাড়া খামারে যাতে ঠিকভাবে কার্বন ডাই-অক্সাইড ও অক্সিজেন চলাচল করতে পারে, সেদিকেও লক্ষ রাখতে হবে। না হলে মাশরুম চাষে ভালো ফলন পাওয়া যাবে না।

আয়-ব্যয়
১০ ফুট বাই ১০ ফুট একটা জায়গার মধ্যে এক হাজার বীজ থেকে তিন মাস পর্যন্ত দৈনিক সাধারণত পাঁচ থেকে সাত কেজি করে মাশরুম পাওয়া যায়। সঠিকভাবে রক্ষণাবেক্ষণ করলে দৈনিক ১০ কেজিও পাওয়া সম্ভব, যা থেকে মাসে ১২ থেকে ১৫ হাজার টাকা পর্যন্ত লাভ হতে পারে। গ্রামে বা যাঁদের নিজের জমি আছে তাঁরা মাশরুম চাষ করলে বেশি লাভবান হবেন।

প্রশিক্ষণ
দেশে সরকারি ও ব্যক্তি উদ্যোগে বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান রয়েছে, যেখানে মাশরুম চাষের ওপর তিন দিনের বিশেষ প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা রয়েছে। সরকারি ‘জাতীয় মাশরুম উন্নয়ন ও সম্প্রসারণ কেন্দ্র’ বিনা খরচে এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোতে দুই থেকে তিন হাজার টাকার মধ্যে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। প্রতিষ্ঠান দুটির টিকানা-
১. জাতীয় মাশরুম উন্নয়ন ও সম্প্রসারণ কেন্দ্র
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, কৃষি মন্ত্রণালয়
সোবহানবাগ, সাভার, ঢাকা। ফোন : ৭৭৪২৪৯৬

২. ডেইনটি মাশরুম খামার, প্লট-১০, রোড-১৬/এ, এভিনিউ-৫
সেকশন-১১, মিরপুর, ঢাকা-১২১৬
ফোন : ০১৫৫২৩২৩০৭৬, ০১৮১৯১০৩৫২৪

Comments

comments

Comments are closed.