প্রচ্ছদ > ক্যারিয়ার > বাড়তি আয় > মাশরুম চাষ : ঘরে বসে আয়
মাশরুম চাষ : ঘরে বসে আয়

মাশরুম চাষ : ঘরে বসে আয়

যেকোনো সমান জায়গায় কম আলোয় মাশরুম চাষ করা যায়। বীজ বোনার পাঁচ-সাত দিনের মধ্যেই ফলন। আট থেকে দশ হাজার বীজ থেকে দৈনিক ১৫-১৮ কেজি মাশরুম পাওয়া যায়। ১০০ গ্রাম কাঁচা মাশরুম ২০-২৬ টাকা, শুকনা ১৭০-১৮৫ টাকা এবং গুঁড়া ১৭০-১৮৫ টাকা বিক্রি করা যায়। তাই বাড়তি আয়ের মাধ্যম হিসেবে বেছে নিতে পারেন মাশরুম চাষ। বিস্তারিত জানাচ্ছেন ফরহাদ হোসেন

একসময় মাশরুমকে ব্যাঙের ছাতা বলে কত হাসাহাসিই না করেছি আমরা। সেই মাশরুম আজ হয়ে গেছে অর্থকরী সবজি। মাশরুম হলো একধরনের ছত্রাক। পৃথিবীর সর্বত্র এই ছত্রাক সবজি হিসেবে খাওয়া হয়। গ্রিক, রোমান ও চীনারা মাশরুমকে দেবতার খাবার হিসেবে মনে করেন। প্রাচীন দেব-দেবীদের এটি দিয়ে পুজো দেওয়া হতো। এমনকি রাজা-মহারাজাদেরও মাশরুম উপহার হিসেবে পাঠানো হতো। যেকোনো সবজির চেয়ে এর খাদ্যগুণ বেশি। এতে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন, খনিজ পদার্থ ও ভিটামিন আছে। সুস্বাদু এই খাবারের স্বাদ অনেকটা মাংসের মতো। মাশরুম দাঁত ও হাড়ের গঠনে বিশেষ উপযোগী। রক্তহীনতা, বেরিবেরি ও হূদরোগ প্রতিরোধে এবং বহুমূত্র রোগে বিশেষ কার্যকরী। প্রায় তিন লাখ ছত্রাকের মধ্য থেকে মাত্র ১০ প্রজাতির ছত্রাক খাওয়ার উপযোগী।

মাশরুমের ব্যবহার
মাশরুম দিয়ে বিভিন্ন খাবার তৈরি হয়। যেমন- ফ্রাই, চপ, চিংড়ি মাশরুম, মাশরুম চিকেন স্যুপ, নুডলস, কারি, আচার, রোল, সালাদ, মাশরুম চিকেন বিরিয়ানি ইত্যাদি। এ ছাড়া মাশরুম মাংস রান্নায় এবং রূপচর্চায় ব্যবহূত হয়।

যেভাবে শুরু করবেন
মাশরুম চাষের জন্য সবার আগে প্রয়োজন কোন খামারে বা প্রশিক্ষণ কেন্দ্র থেকে প্রশিক্ষণ। প্রশিক্ষণের মাধ্যমে জানতে পারবেন মাশরুমের চাষাবাদ, সংগ্রহ, সংরক্ষণ প্রণালি, বাজারজাতকরণসহ অন্যান্য বিষয়। প্রশিক্ষণ নেওয়ার পর প্রয়োজন পুঁজি। পরিকল্পনা অনুযায়ী ঠিক করতে হবে কী পরিমাণ ও কতটুকু জায়গায় চাষ করবেন। এরপর চাষের খরচ, স্থান নির্বাচন, প্রয়োজনীয় উপকরণ সংগ্রহ, বীজ সংগ্রহ করতে হবে ইত্যাদি।

পুঁজি যখন এক লাখ
সাধারণত ১৬ ফুট বাই ৩২ ফুট এবং ১০ ফুট উচ্চতার ঘরে সমতলে ছয়টি মাচা বা তাক (১ ফুট অন্তর অন্তর) তৈরি করত হবে। ৪ ফুট দৈর্ঘ্য এবং ৩ ফুট প্রস্থের একটি তাকে ৮০০-১০০০ বীজ চাষ করা যায়। চাষের জন্য বীজ পাওয়া যাবে পুরনো চাষিদের কাছে এবং সাভারে সোবহানবাগের মাশরুম উন্নয়ন জোরদারকরণ প্রকল্পে। বিভিন্ন জাতের মাশরুমের জন্য বিভিন্ন ধরনের তাপমাত্রা ও আবহাওয়ার প্রয়োজন। বাংলাদেশে গ্রীষ্ম এবং বর্ষায় ‘স্ট্র মাশরুম’ এবং শীতকালে ‘ওয়েস্টার’ জাতের মাশরুম চাষ উপযোগী। তা ছাড়া মিল্কী মাশরুমও চাষ করা যায়। মাশরুম চাষের জন্য প্রাথমিক অবস্থায় ২০-৩০ ডিগ্রি তাপমাত্রার প্রয়োজন হয়। এ ক্ষেত্রে ছনের চালা বা টিনের ঘরে সিলিংয়ের ব্যবস্থা করা যেতে পারে। ঘরটি গাছের নিচে হলে তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ রাখা সম্ভব। আর তাক তৈরির সময় যাতায়াত, পরিচর্যা ও সংরক্ষণের জন্য নূ্যনতম জায়গা রাখতে হবে। বীজের পরিচর্যা, ফলন তোলা ও সংরক্ষণের জন্য বিভিন্ন প্রকারের উপকরণের প্রয়োজন হবে।

কম সময়ে দ্রুত ফলন
প্রয়োজনীয় আনুষঙ্গিক সব ঠিক করে বীজ আনার পাঁচ-সাত দিনের মধ্যে প্রথম ফলন পাওয়া যাবে। একটি বীজ থেকে তিন-চার দিন অন্তর অন্তর ফল পাওয়া যায়। প্রতিটি বীজ থেকে দু-তিন মাস পর্যন্ত ফলন পাওয়া যায়। এভাবে প্রাথমিক অবস্থায় আট থেকে দশ হাজার বীজ থেকে দৈনিক  ১৫-১৮ কেজি পর্যন্ত ফলন পাওয়া যায়। তবে বীজ পুরনো হলে ধীরে ধীরে ফলন কমতে থাকে। তখন নতুন বীজ সংযোজন করলে আবার ফলন বেড়ে যায়।

যেখানে বিক্রি করবেন
বিভিন্ন চেইন শপে (যেমন আগোরা, নন্দন, স্বপ্ন, মিনাবাজার) মাশরুম সবচেয়ে বেশি বিক্রি হয়। উত্পাদনকারীরা প্যাকেটজাত করে সরাসরি চেইন শপগুলোতে পাইকারি দরে সরবরাহ করেন। এ ছাড়া বিভিন্ন চায়নিজ রেস্তোরা, ফাস্টফুড খাবারের দোকান এবং রাস্তার ধারে মুখরোচক বিভিন্ন খাবারের দোকানে মাশরুম বিক্রি করা যায়। অনেক ক্রেতা সরাসরি খামারে এসেও মাশরুম কেনেন। তিনভাবে মাশরুম বিক্রি হয়- ফ্রেশ বা কাঁচা মাশরুম, শুকনা মাশরুম এবং পাউডার মাশরুম। কাঁচা মাশরুম ১০০ গ্রাম প্যাকেট হিসেবে ২০-২৬ টাকা, শুকনা ১০০ গ্রাম ১৭০-১৮৫ টাকা এবং পাউডার ১০০ গ্রাম হিসেবে ১৭০-১৮৫ টাকায় বিক্রি হয়।

ঝুঁকি
সঠিক পদ্ধতিতে উৎপাদন করতে না পারলে ঝুঁকির পরিমাণ বেড়ে যায়। সঠিক তাপমাত্রার অভাব ছাড়াও বিভিন্ন পোকামাকড় যেমন- তেলাপোকা, মাছি, ইঁদুর, মাকড়সা ইত্যাদি আক্রমণের শঙ্কা আছে। এসব ক্ষতিকর পোকামাকড়কে সঠিক পদ্ধতিতে প্রতিকার করতে হবে।

প্রশিক্ষণ
সরকারিভাবে জাতীয় মাশরুম উন্নয়ন ও সম্প্রসারণ কেন্দ্র বিনা খরচে  প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকে। এ ছাড়া বিভিন্ন জেলায় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর মাশরুম চাষের জন্য বিভিন্ন কারিগরি সহায়তা করে থাকে। আর প্রশিক্ষণের জন্য বেসরকারি প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান এবং খামার তো রয়েছেই।

যোগাযোগ
মাশরুম উন্নয়ন জোরদারকরণ প্রকল্প
জাতীয় মাশরুম উন্নয়ন ও সম্প্রসারণ কেন্দ্র
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, কৃষি মন্ত্রণালয়
সোবহানবাগ, সাভার, ঢাকা।
ফোন-০২-৭৭৪২৪৯৬, ০২-৭৭১০৬৪৬

সাক্ষাৎকার
বিনামূল্যে প্রশিক্ষণ  দেওয়া হয়
সালেহ আহম্মদ
প্রকল্প পরিচালক, মাশরুম উন্নয়ন জোরদার প্রকল্প
জাতীয় মাশরুম উন্নয়ন ও সম্প্রসারণ কেন্দ্র

মাশরুম চাষের ওপর আমরা নিয়মিতই তিন থেকে পাঁচ দিনের প্রশিক্ষণ কর্মশালা করছি। পুরনো উদ্যোক্তা, নতুন উদ্যোক্তা, খামারিদের এসব প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। এ পর্যন্ত প্রায় ২০ হাজার লোককে প্রশিক্ষণ দিয়েছি। আর সবগুলো প্রশিক্ষণই বিনা মূল্যে দেওয়া হয়। আগ্রহী যে কেউ এসব প্রশিক্ষণে অংশ নিতে পারেন। সাভার ছাড়াও বিভিন্ন জেলা পর্যায়ে আমাদের আরো ১৬টি প্রশিক্ষণকেন্দ্র রয়েছে। সারা বছরের মধ্যে শীতকালে মাশরুমের ভালো ফলন হয়। ১০০ গ্রাম মাশরুমের উত্পাদন খরচ যেখানে মাত্র ২০ টাকা, সেখানে বিক্রয় মূল্য ১১০ টাকা। তাই বাড়তি আয়ের জন্য যে কেউ এ পেশায় আসতে পারেন।

ব্যবসা ভালো হওয়ায় শিক্ষকতা ছেড়ে মাশরুম চাষ শুরু করি
মো. ইলিয়াছ
স্বত্বাধিকারী, ডেইনটি মাশরুম খামার, মিরপুর, ঢাকা

জগন্নাথ থেকে রসায়নে স্নাতকোত্তর শেষ করে শিক্ষকতা শুরু করি। এর পাশাপাশি ছোট আকারে মাশরুম চাষেও জড়িত হই। ২০০৬ সালের দিকে ব্যবসা ভালো হওয়ায় শিক্ষকতা ছেড়ে মাশরুম চাষ শুরু করি। প্রথম দিকে তিন লাখ টাকা নিয়ে শুরু করলেও এখন প্রায় ১৫ লাখ টাকার ব্যবসা। বর্তমানে খামারে প্রতিদিন চার থেকে পাঁচজন কর্মী কাজ করছে। বেতন বাবদ ২০-২৪ হাজার টাকা খরচ হচ্ছে। আর পরিচর্যা, সরবরাহ, বিক্রয়, ব্যবস্থাপনা, ভাড়া, বিভিন্ন বিলসহ ৩০-৩২ হাজার টাকা খরচ হয়। প্রতি মাসে ৭০ থেকে ৭৫ হাজার টাকার মাশরুম বিক্রি করে সব খরচ বাদ দিয়ে ১৫ হাজার টাকা লাভ থাকে

প্রতিদিন ১৫-১৮ কেজি পর্যন্ত ফলন পাচ্ছি
সাইফুল ইসলাম
সফল মাশরুম চাষি, সাভার, ঢাকা

২০০২ সালে এসএসসি পরীক্ষা দেওয়ার পর কিছু একটা করতে চাচ্ছিলাম। সে বছরেরই জুন-জুলাইয়ের দিকে প্রথমে মাশরুম চাষ সম্পর্কে জানতে পারি। সাভারে মাশরুম চাষ প্রশিক্ষণ থেকে স্বল্পমেয়াদি একটি প্রশিক্ষণ গ্রহণ করে নেমে পড়ি। প্রথমে আমার মূলধন ছিল মাত্র দুই হাজার টাকা। স্বল্প পরিমাণে চাষের কারণে এর বাজারজাতকরণ বেশ সমস্যা হচ্ছিল। ২০০৪ সালে ২৫ হাজার টাকা পুঁজি নিয়ে নতুন করে আবারও মাশরুম চাষ শুরু করি। বর্তমানে আমার মূলধন বেড়ে হয়েছে তিন লাখ টাকা। আট-দশ হাজার বীজ থেকে প্রতিদিন ১৫-১৮ কেজি পর্যন্ত ফলন পাচ্ছি।

Comments

comments

One comment

  1. মাসরুম চাষ কিভাবে করতেহয়