প্রচ্ছদ > ক্যারিয়ার > চাকরির খবর > লক্ষ্য যদি সেকেন্ড লেফটেন্যান্ট
লক্ষ্য যদি সেকেন্ড লেফটেন্যান্ট

লক্ষ্য যদি সেকেন্ড লেফটেন্যান্ট

দুঃসাহসিক নেতৃত্বের চ্যালেঞ্জ নিতে চাইলে স্নাতক শেষে সেকেন্ড লেফটেন্যান্ট পদে যোগ দিতে পারেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে। অনলাইনে আবেদন করা যাবে ১৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত। বিস্তারিত জানাচ্ছেন রায়হান আহমদ আশরাফী

আবেদনের যোগ্যতা
যেকোনো বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক বা স্নাতক সম্মান ডিগ্রি থাকলে আবেদন করা যাবে। স্নাতক বা স্নাতক সম্মান পর্যায়ে সিজিপিএ ৪ স্কেলে কমপক্ষে ২.৫ এবং এসএসসি ও এইচএসসি পর্যায়ে পেতে হবে কমপক্ষে জিপিএ ৪.০০। প্রার্থীকে জন্মসূত্রে বাংলাদেশের নাগরিক এবং অবিবাহিত হতে হবে। ৩০ জুন ২০১৬ তারিখে বয়সসীমা ১৯ থেকে ২৪ বছর। পুরুষ প্রার্থীদের উচ্চতা ৫ ফুট ৪ ইঞ্চি, ওজন ৫০ কেজি, বুক স্বাভাবিক অবস্থায় ৩০ ইঞ্চি ও প্রসারিত অবস্থায় ৩২ ইঞ্চি হতে হবে। নারীদের ক্ষেত্রে উচ্চতা ৫ ফুট ২ ইঞ্চি, ওজন ৪৭ কেজি, বুকের মাপ স্বাভাবিক অবস্থায় ২৮ ইঞ্চি ও প্রসারিত অবস্থায় ৩০ ইঞ্চি হতে হবে। সেনা, নৌ বা বিমানবাহিনী থেকে বা কোনো সরকারি চাকরি থেকে অপসারিত বা বরখাস্ত হলে, আপিল মেডিক্যাল বোর্ড কর্তৃক অযোগ্য ঘোষিত হলে, আইএসএসবি থেকে দুবার প্রত্যাখ্যাত হলে আবেদন করা যাবে না।

আবেদনের নিয়ম
আবেদন করতে হবে অনলাইনে। www.joinbangladesharmy.mil.bd ওয়েবসাইটে গিয়ে Apply Now-তে ক্লিক করতে হবে। দ্বিতীয় বিএমএ গ্র্যাজুয়েট কোর্স নির্বাচন করে আবেদন করতে হবে। আবেদন শেষে ট্রাস্ট ব্যাংক মোবাইল ব্যাংকিং অথবা ভিসা বা মাস্টার কার্ডের মাধ্যমে আবেদন ফি ১০০০ টাকা জমা দিতে হবে। আবেদন ফি জমা দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই প্রাথমিক সাক্ষাৎকারের কলআপ লেটার ডাউনলোড করা যাবে। অনলাইনে আবেদন করা যাবে ১৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত।

বাছাই প্রক্রিয়া
২৭ ডিসেম্বর ২০১৫ থেকে ৭ জানুয়ারি ২০১৬ পর্যন্ত স্বাস্থ্য ও মৌখিক পরীক্ষা নেওয়া হবে। পরীক্ষা হবে ঢাকা সেনানিবাসের অ্যাডহক আর্মি এভিয়েশন গ্রুপ এবং সিওডি, চট্টগ্রাম সেনানিবাসের ইবিআরসি, রাজশাহী সেনানিবাসের বিআইআরসি, খুলনা জাহানাবাদ সেনানিবাসের এএসসিসিঅ্যান্ডএস এবং সৈয়দপুর সেনানিবাসের ইএমই সেন্টার অ্যান্ড স্কুলে। প্রত্যেক প্রার্থীর কলআপ লেটারে প্রাথমিক স্বাস্থ্য ও মৌখিক পরীক্ষার তারিখ ও সময় উল্লেখ থাকবে। নির্ধারিত তারিখে উপস্থিত হতে না পারলে বাছাই চলাকালে যেকোনো দিন উপস্থিত হয়ে পরীক্ষায় অংশ নেওয়া যাবে, তবে বিষয়টি আগেই জানাতে হবে নিজ পরীক্ষাকেন্দ্রে। প্রাথমিক নির্বাচনী পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের আইএসএসবির কলআপ লেটার পাঠানো হবে। নির্ধারিত তারিখে সময়মতো উপস্থিত হতে হবে ঢাকা সেনানিবাসে আইএসএসবিতে। চার দিনের আইএসএসবি পরীক্ষা হয় দুই ধাপে। প্রথম ধাপে প্রথম দিন সকালে বুদ্ধিমত্তা পরীক্ষা এবং পিকচার পারসেপশন অ্যান্ড ডেস্ক্রিপশন টেস্ট (পিপিডিটি) নেওয়া হয়। এ দুই পরীক্ষার ওপর ভিত্তি করে ফলাফল ঘোষণা করা হয়। প্রথম ধাপ পেরোতে পারলে সুযোগ মিলবে দ্বিতীয় ধাপে অংশগ্রহণের। দ্বিতীয় ধাপের প্রার্থীদের প্রথম দিন দুপুরে মনস্তাত্ত্বিক পরীক্ষায় অংশ নিতে হয়। এরপর লিখতে হবে নির্দিষ্ট বিষয়ের ওপর বাংলা ও ইংরেজি রচনা। দ্বিতীয় দিনে নির্দিষ্ট বিষয়ের ওপর বাংলা ও ইংরেজিতে দলগত আলোচনা, বক্তৃতা, শারীরিক সামর্থ্য পরীক্ষা এবং মৌখিক পরীক্ষায় অংশ নিতে হয়। তৃতীয় দিন প্রার্থীকে অংশ নিতে হয় প্ল্যানিং ও কমান্ড টেস্টে। এরপর নেওয়া হবে মৌখিক পরীক্ষা। চতুর্থ দিনে উত্তীর্ণদের গ্রিন কার্ড দেওয়া হবে, বাদ পড়লে মিলবে রেড কার্ড। আইএসএসবি প্রস্তুতি সম্পর্কে বিস্তারিত জানা যাবে www.issb-bd.org ওয়েবসাইটে। আইএসএসবিতে গ্রিন কার্ডপ্রাপ্তদের চূড়ান্ত স্বাস্থ্য পরীক্ষা নেওয়া হবে। স্বাস্থ্য পরীক্ষায় যোগ্যরা বাংলাদেশ মিলিটারি একাডেমিতে এক বছর প্রশিক্ষণ শেষে সেকেন্ড লেফটেন্যান্ট পদে যোগ দেবেন।

সুযোগ-সুবিধা
বিএমএতে এক বছর প্রশিক্ষণকালে প্রতি মাসে প্রশিক্ষণকালীন ভাতা হিসেবে ১০ হাজার টাকা দেওয়া হবে। প্রশিক্ষণ শেষে পদবি অনুযায়ী মিলবে বেতন-ভাতা, বাসস্থান, প্লট ও ফ্ল্যাটপ্রাপ্তির সুবিধা এবং উন্নতমানের চিকিৎসা সুবিধা। রয়েছে যোগ্যতা অনুযায়ী স্নাতকোত্তর, এমফিল ও পিএইচডি ডিগ্রি লাভের সুযোগ। জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী বাহিনীতে যোগদান, বিদেশে প্রশিক্ষণের পাশাপাশি বাংলাদেশ দূতাবাসগুলো নিয়োগ পেতে পারেন সামরিক বা সহকারী সামরিক উপদেষ্টা পদে।

Comments

comments

Comments are closed.