মিথিলা, অভিনেত্রী

মিথিলা, অভিনেত্রী

শিক্ষকতাই বেশি ভালো লাগছে
রাফিয়াত রশিদ মিথিলা
প্রভাষক, ইংরেজি বিভাগ
নর্দান বিশ্ববিদ্যালয়

আমি ভিকারুননিসা নূন স্কুলের ছাত্রী ছিলাম। একদিন ক্লাসটিচার জিজ্ঞেস করলেন, ‘তোমরা বড় হয়ে কে কী হতে চাও?’ হুট করে বলে দিলাম, চিত্রশিল্পী হব। তখন আমার আকাঁআকিঁর অভ্যাস ছিল। একই প্রশ্নের উত্তরে অন্যদিন স্যারকে বলেছিলাম, শিক্ষক হব।
আমার মাও একজন শিক্ষক। মায়ের প্রতি শিক্ষার্থীদের অগাধ শ্রদ্ধাবোধ দেখে দেখে ছোটবেলা থেকেই শিক্ষকতার প্রতি একটা দুর্বলতা তৈরি হয়েছিল। নবম শ্রেণীতে পড়ার সময় থেকেই বিভিন্ন কোচিং সেন্টারে পড়াতাম। আমার ছোট দুই বোন আর ভাইকে আমিই পড়িয়েছি। ধীরে ধীরে বিষয়টি উপভোগ করতে শুরু করি। ২০০৮ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে মাস্টার্স করি। মাঝে ইংরেজিতে বিএড করেছি। সবই শিক্ষক হিসেবে নিজেকে দাঁড় করানোর ইচ্ছায়। সুযোগ আসে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ে গবেষণার কাজ করার। বেশ কিছুদিন সেখানে কাজ করে যুক্তরাষ্ট্রের মিনেসোটা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে শিক্ষকতার ওপর কোর্স করি। সেখানে পড়ার সময় টমাস এডিসন হাই স্কুল এবং হেরিটেজ একাডেমীতে শিক্ষকতা করেছি।
দেশে ফিরে উত্তরার স্কলাসটিকা স্কুলে শিক্ষক হিসেবে যোগ দিই। বাসা থেকে স্কুল অনেক দূরে হওয়ায় বাধ্য হয়ে স্কলাসটিকা ছেড়ে দিতে হয়। তারপর থেকে ‘বিবিসি জানালা’র ব্যান্ড অ্যাম্বাসাডর হিসেবে কাজ করি। সত্যি বলতে কি, এখন অভিনয়, মডেলিং কিংবা গানের চেয়ে শিক্ষকতাই বেশি ভালো লাগছে। ক্লাসে আমি শুধুই শিক্ষক। এ মাসের শুরুতে যোগ দিয়েছি নর্দান বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজির প্রভাষক হিসেবে। হেসে-খেলে ক্লাস নিতে পছন্দ করি। এ পেশায় আসতে পেরে খুবই খুশি। একজন প্রতিষ্ঠিত শিক্ষক হিসেবে নিজেকে গড়ে তুলতে চাই।

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*