প্রচ্ছদ > বিনোদন > আনন্দালোকে > আন্তর্জাতিক শিশু চলচ্চিত্র উৎসব শুরু
আন্তর্জাতিক শিশু চলচ্চিত্র উৎসব শুরু

আন্তর্জাতিক শিশু চলচ্চিত্র উৎসব শুরু

প্রতিবছর এই সময়ে চিলড্রেনস ফিল্ম সোসাইটি বাংলাদেশ এর উদ্যোগে অনুষ্ঠিত হয় আন্তর্জাতিক শিশু চলচ্চিত্র উৎসব বাংলাদেশ। এবছর এই উৎসবের ৮ম আয়োজন হতে যাচ্ছে। উৎসবটি অনুষ্ঠিত হবে একই সঙ্গে ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, সিলেট, বরিশাল, রংপুর ও খুলনায়। আজ ২৪ জানুয়ারিতে শুরু হয়ে উৎসবটি চলবে ৩০ জানুয়ারি ২০১৫ পর্যন্ত। উদ্বোধনী দিন ছাড়া প্রতিদিন সকাল ১১টা, দুপুর ২টা, বিকেল ৪টা ও সন্ধ্যে ৬টায় মোট ৪টি করে প্রদর্শনী হবে। এবারের উৎসবে সারাদেশের মোট ১৪টি ভেন্যুতে ৪৬টি দেশের দুই শতাধিক শিশুতোষ চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হবে। যে কোনো দিন দেখে আসতে পারো নিজের পছন্দের একটি বা কয়েকটি সিনেমা। বিভিন্ন দেশের নানান স্বাদের চলচ্চিত্র দেখার এই দুর্লভ সুযোগটি হাতছাড়া করো না যেন।
‘ফ্রেমে ফ্রেমে আগামী স্বপ্ন’ স্লোগানে এই আয়োজনে এবার থাকবে দেশ বিদেশের শিশুদের বানানো ৩০টি সিনেমা। এই ৩০টি সিনেমাও কিন্তু বিপুল প্রতিযোগিতার পরে নির্বাচিত হয়েছে। এই বছর জমা পড়েছিল প্রায় ৮০টি সিনেমা। নির্বাচিত ৩০টি সিনেমার মধ্য থেকে শ্রেষ্ঠ ৫টি সিনেমাকে পুরস্কৃত করা হবে। আর এই ৫টি সিনেমা যে অন্যগুলো থেকে বেশি ভালো, সেটা নির্ধারণ করার জন্য ৫ সদস্যের একটা জুরি বোর্ড রয়েছে। এই জুরি বোর্ডের ৫ জনই কিন্তু শিশু। যাদের বানানো সিনেমা শ্রেষ্ঠ নির্বাচিত হবে, তাদের জন্য রয়েছে ক্রেস্ট, সার্টিফিকেট এবং আর্থিক প্রণোদনা।
যে ৩০টি সিনেমা নির্বাচন করা হয়েছে সেগুলো যে শুধু ঢাকায় মূল উৎসব কেন্দ্র কেন্দ্রীয় পাবলিক লাইব্রেরির শওকত ওসমান মিলনায়তনে দেখানো হবে তা কিন্তু নয়। এর বাইরে এবারের উৎসবে সারাদেশের মোট ১৪টি ভেন্যুতে ৪৬টি দেশের দুই শতাধিক শিশুতোষ চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হবে। অনুষ্ঠানগুলো সব শিশু-কিশোর এবং তাদের অভিভাবকের জন্য উন্মুক্ত।
এবার ‘ইয়াং বাংলাদেশি ট্যালেন্ট’ শীর্ষক একটি নতুন পুরস্কার চালু করা হয়েছে, যেখানে ১৯ থেকে ২৫ বছর বয়সী তরুণ নির্মাতারা অংশ নিবেন। একই সঙ্গে এবার প্রথমবারের মতো একটি আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছে। এ বিভাগে উৎসব কমিটির দ্বারা মনোনীত বাংলাদেশসহ অন্যান্য দেশের মোট ১৫টি চলচ্চিত্র অংশ নিবে। এই চলচ্চিত্রগুলো বিচার করার জন্য পশ্চিমবঙ্গের প্রখ্যাত নির্মাতা বুদ্ধদেব দাসগুপ্তকে চেয়ারম্যান করে তিন সদস্যের একটি জুরি বোর্ড গঠন করা হয়েছে।
উৎসবের উদ্বোধন হয়ে গেল আজ ২৪ জানুয়ারি বিকেল ৪টায় কেন্দ্রীয় পাবলিক লাইব্রেরি চত্বর ও শওকত ওসমান মিলনায়তনে।
২৭ জানুয়ারি, মঙ্গলবার সকাল ১১টায় জাদুঘরের সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে বাল্যবিবাহ বিষয়ক একটি সেমিনার  হবে। আয়োজক ঢাকাস্থ কানাডিয়ান হাই কমিশন। একই সঙ্গে তাদের সহযোগিতায় খোলা হয়েছে সামাজিক চলচ্চিত্র বিভাগ। এই বিভাগে এবারের বিষয় বাল্যবিবাহ। এই বিভাগে মোট আটটি চলচ্চিত্র জমা পড়েছে। যার মধ্যে থেকে পাঁচটি প্রদর্শনীর জন্য নির্বাচিত হয়েছে আর এর মধ্য থেকে একটিকে পুরস্কৃত করা হবে।

 

Comments

comments

Comments are closed.