প্রচ্ছদ > অর্থ-বাণিজ্য > আইপিও’র নতুন নিয়ম
আইপিও’র নতুন নিয়ম

আইপিও’র নতুন নিয়ম

প্রাথমিক গণপ্রস্তাব (আইপিও) প্রক্রিয়া সহজ করতে ব্যাংকের মাধ্যমে আবেদন করার পদ্ধতি পরিবর্তন করে খসড়া নীতিমালার চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রণ সংস্থা বিএসইসি।

নতুন পদ্ধতিতে স্টক ব্রোকার, মার্চেন্ট ব্যাংক ও বাংলাদেশ ব্যাংকের (এনআরবি এবং বিদেশি আবেদনকারী) মাধ্যমে পাবলিক ইস্যুর আবেদন গ্রহণ করা হবে। এদেরকে বলা হচ্ছে ডিপোজেটরি পার্টিসিপেন্ট (ডিপি)।

আগামী ১৫ জুলাই থেকে নতুন পদ্ধতি কার্যকর হবে বলে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) বুধবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানিয়েছে।

এখন আইপিওর মাধ্যমে শেয়ার বিক্রিতে আগ্রহী কোম্পানি কয়েকটি ব্যাংককে তাদের হয়ে আবেদনপত্র ও শেয়ারের টাকা সংগ্রহের দায়িত্ব দেয়। এর বিনিময়ে তারা একটি কমিশন (জমাকৃত প্রতি ১০০ টাকায় ১০ পয়সা হিসাবে) পেয়ে থাকে।

মঙ্গলবার কমিটির নিয়মিত সভায় আইপিও আবেদনের পদ্ধতি পরিবর্তনের নীতিমালা অনুমোদিত হয়।

কমিশন বলছে, ব্যাংকের পরিবর্তে ডিপির মাধ্যমে আইপিও আবেদনের পদ্ধতি চালু হলে ঝক্কি অনেক কমে আসবে। এই পদ্ধতিতে ডিপির কাছে সংরক্ষিত হিসাবে আইপিওর জন্য প্রযোজ্য অর্থ জমা রাখতে হবে। আবেদনের পর ডিপি ওই অর্থ ব্লক করে দেবে।

আইপিও’র লটারি না হওয়া পর্যন্ত ওই অর্থ তোলা, স্থানান্তর করা যাবে না। তা দিয়ে কোনো শেয়ারও কেনা যাবে না। লটারিতে কৃতকার্য হলে ওই হিসাব থেকে প্রযোজ্য অর্থ সংশ্লিষ্ট কোম্পানিতে পাঠিয়ে দেবে ডিপি।

আর অকৃতকার্য হলে টাকা ‘আন-ব্লক’ করা হবে। তখন চাইলেই তা তুলে নিতে, স্থানান্তর করতে বা শেয়ার কেনায় ব্যবহার করতে পারবেন সংশ্লিষ্ট বিনিয়োগকারী।

বর্তমান পদ্ধতিতে আইপিও লটারিতে ব্যর্থ হলে বিনিয়োগকারীকে বেশ কয়েক হাত ঘুরে টাকা ফেরত পেতে হয়। এতে বেশ কয়েকদিন সময় নষ্ট হয়।

বিএসইসির বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, কমিশন সভায় শিগগিরই এ সংক্রান্ত একটি ‘পরীক্ষামূলক প্রকল্প’ চালুর সিদ্ধান্ত হয়েছে। এ লক্ষ্যে ১৫ জুলাইয়ের মধ্যে উভয় স্টক এক্সচেঞ্জের সদস্যভুক্ত ব্রোকারদের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করতে বলা হয়েছে।

“এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি গ্রহণের জন্য সকল স্টক ব্রোকার, মার্চেন্ট ব্যাংক এবং বাংলাদেশ ব্যাংকে অনুমোদিত পদ্ধতির বিস্তারিত বিতরণ করা হবে।”

আগামী ১৫ জুলাইয়ের মধ্যে উভয় স্টক এক্সচেঞ্জের সদস্যভুক্ত ব্রোকারদের সফটওয়্যারসহ অন্যান্য প্রয়োজনীয় পরিবর্তন, সম্পাদন ও প্রস্তুতি গ্রহণ করে স্টক এক্সচেঞ্জ, মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিএমবিএ), অ্যাসোসিয়েশন অফ ব্যাংকার্স বাংলাদেশের মাধ্যমে কমিশনকে জানাতে বলা হয়েছে।

Share and Enjoy !

0Shares
0 0

Comments

comments

Comments are closed.