গায়ে হলুদের ফর্দ

গায়ে হলুদের ফর্দ

ইনফোপিডিয়া ডেস্ক :::
এত কিছু! হলুদের তত্ত্বের লিস্ট দেখে ঘাবড়ে যাবেন না। বিয়ে বলে কথা। তবে যাঁরা ইতিমধ্যেই শুভ কাজ সেরে ফেলেছেন তাঁদের জানার কথা, তত্ত্বের ‘সাজনার চেয়ে বাজনা’ কিন্তু কমই। কারণ দোকানে এগুলো একসঙ্গেই এক সেটে মিলবে। আপনি শুধু যাবেন তত্ত্বের সেট কিনতে, যা দেওয়ার দোকানিই দেবেন। শুধু নেওয়ার পর লিস্টের সঙ্গে মিলিয়ে নেবেন কিছু বাদ পড়ল কি না। এলিফ্যান্ট রোডের বর-কনে দোকানের বিক্রেতা সালাউদ্দীন আহমেদ জানান, ‘তত্ত্বের সেটই বেশি বিক্রি হয়। সব সাজানো-গোছানো থাকে একসঙ্গে। অবশ্য অনেকে আবার আলাদা আলাদাও কিনতে চান। কেউ আবার তত্ত্বের উপকরণাদি সাজিয়েও নিয়ে যান দোকান থেকে।’ দোকানভেদে তত্ত্বের আছে রকমফের। তাই পছন্দমতো বেছে নেওয়ার সুযোগ আছে। আবার অনেক দোকানে সব কিছু এক সেটে না থাকলেও ডালা-কুলা মিলে এক সেট।
গায়ে হলুদ অনুষ্ঠানে ডালা-কুলা সাজিয়ে বর-কনের বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়। আর এই ডালা-কুলায় থাকে বর-কনের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র। দু-একটি বাদে প্রায় সব উপকরণই এতে রাখা হয়। এমনভাবে ডালায় সাজাতে হয়, যাতে সব প্রয়োজনীয় প্রসাধন একসঙ্গে হাতের কাছে থাকে। ডালা-কুলা রঙিন কাপড়ে মোড়ানো নিলে ভালো। এ ছাড়া কাতান কাপড়ে মুড়িয়ে নিতে পারেন নিজেরাই। পান সাজিয়ে দিতে পারেন ময়ূর স্টাইলে। মিষ্টি দেওয়ার হাঁড়িটি আলপনা করে নিতে পারেন। আবার আলপনা করা হাঁড়িও পাওয়া যায়। ডালাগুলো কাগজের র‌্যাপিং, সাটিন কাপড়, নেট, ড্রাইফুল, কাপড়ের ফুল, লেস ইত্যাদি দিয়ে সাজাতে পারেন। ডালার মধ্যে পান-সুপারি অনেক সুন্দর করে সাজিয়ে দেবেন। পান-সুপারি সাধারণও হতে পারে। আর বিশেষ চাইলে পান-সুপারিতে আছে মহেশখালীর পানে ১৮০ রকম মসলা ও খুশবু দিয়ে পান। কিছু ভিন্নতা ছাড়া বর ও কনে উভয়ের গায়ে হলুদ সামগ্রী প্রায় একই।

হলুদের সঙ্গে আরও কিছু
হলুদ তত্ত্বের বাইরে প্রয়োজনীয় আরো দ্রব্যাদি পাওয়া যায় কনের জন্য। যেমন_লিপস্টিক, লিপলাইনার, আইলাইনার, আয়না, ফেস পাউডার, পেস্ট, মাশকারা, ব্রাশ, আইশ্যাডো পেনসিল, পাউডার ও পাউডার কেস, চিরুনি, বডি স্প্রে, কাঁটা বা ক্লিপ, খোঁপা, চুড়ি, আলতা, জরি, স্প্রে, প্লাস্টিক রিবন, রিবন ফুল, জরির ফিতা, পাটি স্প্রে ইত্যাদি।
বরের গায়ে হলুদের জন্য প্রায় একই ধরনের আইটেমের সঙ্গে আছে জরির মালা, ফোম বা জেল, রোলন, রেজার আফটার শেভ ইত্যাদি।

বাড়তি হলুদ সেবা
এলিফ্যান্ট রোডের বেশ কয়েকটি দোকান হলুদে ফটোগ্রাফির কাজ করে। স্টিল ছবি, ভিডিও দুই ধরনের ফটোগ্রাফিই হয়। এ ছাড়া কাঁচা ফুল দিয়ে গায়ে হলুদের স্টেজ সাজানো হয়। এসব সেবা পেতে হলে নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা দিয়ে কন্টাক্ট করতে হবে। বিয়েতে আভিজাত্য আনতে পালকিও ভাড়া নিতে পারেন। ‘বরকনে-২’সহ দু-একটি দোকানে পালকি ভাড়া দেওয়া হয়।

পাবেন
এলিফ্যান্ট রোডে ৩০টির অধিক বিয়ের দোকান আছে। এসব দোকানে পাবেন হলুদের সব উপকরণ। এ ছাড়া নিউ মার্কেট ও কাঁটাবনের দোকানগুলোতেও পাবেন হলুদ সামগ্রী। রাজধানী ঢাকার ধানমণ্ডি, মমতাজ প্লাজা ও বসুন্ধরা সিটি লেভেল ৮-এ রয়েছে পান-সুপারির শোরুম।

হলুদ তত্ত্বের কয়েকটি দোকান
* সানি জরি হাউস-২, ২২৯, নিউ এলিফ্যান্ট রোড, ফোন : ৮৬২৬৩৫৮, ৮৬২৩২৭২, মোবাইল : ০১৯২৩-৩৬৯৩৪২, ০১৭১০-৮২৬২৪৩, ০১৭৪১-৬৯২৭৪৯।
* নবরূপ জরি হাউস, ২২০ নিউ এলিফ্যান্ট রোড, মোবাইল : ০১৭১২-৬৫০১৬৯, ০১৬৭৩৪৯৬৯৮৪।
* সোনালি জরি হাউস, ২২০ নিউ এলিফ্যান্ট রোড, ফোন- ৮৬২৫৩৮৪।
* বিয়েশাদি, ২৩৪/১ নিউ এলিফ্যান্ট রোড, মোবাইল : ০১৭১৫-৬৫৭৪৭০।
* লগন-১, ২১৮/এ, নিউ এলিফ্যান্ট রোড (বাটার মোড়), শেলটেক শিয়েরার বিপরীতে, মোবাইল : ০১৭১৫৪২১৬৮৭।
* রিলেশন, ২১৮/১ নিউ এলিফ্যান্ট রোড ফোরাম মার্কেট (বাটার মোড়), মোবাইল : ০১৯২৩-২৮৯১৩৪, ০১৭৪৯-৫০৪৮০৬।

হলুদ তত্ত্বের উপকরণ
* ডালা
* কুলা
* প্রদীপ বাটি
* রাখি
* চন্দন
* পাটি
* হলুদ তোয়ালে
* আফসান
* পালকি
* ঝুড়ি
* মাছডালা
* হাঁড়ি
* ডালা-কুলা ইত্যাদি সাজাতে কাতান কাপড় (যদি নিজেই সাজাতে চান)
* ছোট পালকি
* সোহাগপুরী
* পান-সুপারি
* মিষ্টির ডালা
* ঢাকনা
* সোন্দা
* সাবান

হলুদ তত্ত্বের দরদাম
ডালা ২২০-৭০০ টাকা, কুলা ১২০-৬০০ টাকা, প্রদীপ বাটি ১০-৫০ টাকা, রাখি ৬০-১২০০ টাকা, চন্দন ১২০-২০০ টাকা, পাটি ১৫০-১৬০০ টাকা, হলুদ তোয়ালে ১২০-৪৫০ টাকা, আফসান ২০-৩০ টাকা, পালকি ১৫০-৬০০ টাকা, ঝুড়ি ১০০-৭০০ টাকা, মাছডালা ২৫০-১২০০ টাকা। হলুদের বাটি ১০ থেকে ৩০ টাকা, চন্দন তেল ৭০ থেকে ১৫০ টাকা, সোহাগপুরী ১০০ থেকে ৪০০ টাকা, ঢাকনা ১০ থেকে ২৫ টাকা, সোন্দা ৩০ থেকে ৫০ টাকা, মেহেদি ৩০ থেকে ৪৫ টাকা, রাখি ৮০ থেকে ৪৫০ টাকা পর্যন্ত। খাবারের ডালা ২০০ থেকে ৫০০ টাকা, মিষ্টির হাঁড়ি ২০০ থেকে ৪০০ টাকা, দইয়ের হাঁড়ি ৬০০ টাকা, ফুলের ঝুড়ি ৪০০ থেকে ৮০০ টাকা। সাজানোর জন্য ছোট পালকির দাম পড়বে ৪০০ টাকা, তত্ত্ব ছাড়া ডালা, কুলা, ঝুড়ির দাম পড়বে ৫০ থেকে ২৫০ টাকা, ফিতা, নানা রকমের মোড়ক, জরির মালা পাবেন পাঁচ থেকে ২৫০ টাকায়। কাপড়ে মোড়ানো বড় ডালা পাবেন ৪৫০ টাকায়। উপটানও কিনে থাকেন অনেকে। দাম পড়বে ৩০ থেকে ৪০০ টাকা। মেহেদি তোয়ালে ৭৫-৭৫০, সোহাগপুরী ১৫০-৫০০ টাকা। পান-সুপারির প্রতিটি পানের দাম পড়বে ১৮০-২০০ টাকা পর্যন্ত।

Comments

comments

Comments are closed.