প্রচ্ছদ > স্বাস্থ্য > বিশেষজ্ঞ পরামর্শ > ব্রণের দাওয়াই অ্যাসপিরিন
ব্রণের দাওয়াই অ্যাসপিরিন

ব্রণের দাওয়াই অ্যাসপিরিন

স্ক্রাব ব্যবহারে ব্রণ কমে। আর ব্রণ দূর করার জন্য ব্যবহৃত স্ক্রাবের প্রধান উপকরণ হচ্ছে স্যালিসাইলিক এসিড। স্যালিসাইলিক এসিড আবার ব্যথা নিরোধক অ্যাসপিরিনের (যা ডিসপ্রিন নামে পরিচিত) প্রধান উপকরণ। এই অ্যাসপিরিন দিয়েই তৈরি অ্যাসপিরিন মাস্ক, যা ব্রণ দূর করার জনপ্রিয় মাস্ক হিসেবে পরিচিত। ত্বকের ধরন অনুযায়ী অ্যাসপিরিন মাস্ক দুভাবে তৈরি করা যায়।

যা প্রয়োজন
অ্যাসপিরিন ট্যাবলেট প্রয়োজন মাস্কটি তৈরি করতে। বাজারে বিভিন্ন নামে অ্যাসপিরিন ট্যাবলেট পাওয়া যায়। এর মধ্যে কিছু ট্যাবলেট কোটেড আর কিছু আনকোটেড। আনকোটেড ট্যাবলেট দিয়ে মাস্ক তৈরি সুবিধাজনক (সহজে গলে)। আনকোটেড ট্যাবলেটের মধ্যে ডিসপ্রিন সহজলভ্য ও দামে সস্তা।

শুষ্ক ত্বকের জন্য
এক টেবিল চামচ পানিতে তিনটি অ্যাসপিরিন ট্যাবলেট গুলে নিন। ট্যাবলেট গলে গেলে এক চা চামচ মধু, কয়েক ফোঁটা আমন্ড অয়েল ভালো করে মিশিয়ে নিন। এই প্যাকটি মুখে লাগিয়ে ২০ মিনিট রাখুন। ঠাণ্ডা পানিতে মুখ ধুয়ে ফেলুন। ধোয়ার সময় আলতোভাবে মুখ ম্যাসাজ করুন। এরপর ভেজা মুখে ময়েশ্চারাইজার লোশন লাগিয়ে নিন। প্যাকটি ত্বক শুষ্ক করে। তাই শুষ্ক ত্বকের বাড়তি যত্ন হিসেবে ময়েশ্চারাইজার লোশন লাগানো জরুরি।

তৈলাক্ত বা মিশ্র ত্বকের জন্য
এক টেবিল চামচ পানিতে ৪টি অ্যাসপিরিন ট্যাবলেট গুলিয়ে নিন। এর মধ্যে এক চা চামচ লেবুর রস ভালো করে মেশান। এরপর মুখে লাগিয়ে রেখে ২০ মিনিট অপেক্ষা করুন। ধুয়ে ফেলুন।

উপকারিতা
# ত্বক নরম ও কোমল করে।
# নিয়মিত ব্যবহারে ব্রণের প্রকোপ কমায়।
# ব্ল্যাকহেডস বা হোয়াইটহেডস দূর করে।
# অ্যাসপিরিনের অ্যান্টিইফ্লামেটরি গুণ রয়েছে, যা মুখের ফোলা ভাব কমায়।

সতর্কতা
# সপ্তাহে এক দিনের বেশি মাস্কটি ব্যবহার না করাই ভালো। বেশি ব্যবহারে ত্বক শুষ্ক ও খড়খড়ে হয়ে যেতে পারে।
# মাস্কটি মুখ থেকে তোলার সময় ভেজা কাপড় ব্যবহার করুন। পানির ঝাপটা দিয়ে নয়। কারণ মাস্ক চোখে বা নাকে গেলে জ্বলতে পারে।
# অ্যাসপিরিন মাস্ক ত্বককে স্পর্শকাতর করে তোলে। তাই মাস্ক ব্যবহারের পর রোদে গেলে অবশ্যই সানস্ক্রিন লাগাতে হবে।
# অ্যাসপিরিনে অ্যালার্জি থাকলে বা আপনার ত্বক স্পর্শকাতর হলে মাস্কটি ব্যবহার করবেন না।
# টিনএজদের জন্য মাস্কটি উপযোগী নয়।

Comments

comments

Comments are closed.