প্রচ্ছদ > তথ্যপ্রযুক্তি > জেনে রাখুন > মোবাইলে ইন্টারনেট ব্যবহারের কায়দাকানুন
মোবাইলে ইন্টারনেট ব্যবহারের কায়দাকানুন

মোবাইলে ইন্টারনেট ব্যবহারের কায়দাকানুন

mobile copyমোবাইল ফোনে ইন্টারনেট ব্যবহারে অনেকেই ভোগান্তিতে পড়েন। কিছু বিষয় জানা থাকলে সহজে ও সাশ্রয়ে মোবাইলে ইন্টারনেট ব্যবহার সম্ভব। এমন জরুরি কিছু বিষয় নিয়ে লিখেছেন তুহিন মাহমুদ

হ্যান্ডসেট নির্বাচন
শুধু স্মার্টফোন নয়, সাধারণ ফোনেও ইন্টারনেট ব্যবহার করা যায়। এ ক্ষেত্রে ফিচার ফোনে সাধারণত জিপিআরএস ও এইজ প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়। আর স্মার্টফোনে জিপিআরএস ও এইজের পাশাপাশি ওয়াইফাই, থ্রিজি, ফোরজি এলটিই প্রযুক্তির ইন্টারনেটও কাজ করে। স্মার্টফোনের এ প্রযুক্তিগুলো দ্রুতগতির ও আধুনিক সুবিধাসম্পন্ন। তাই কী ধরনের ফোনে ইন্টারনেট ব্যবহার করা হবে, তা আগে থেকে জেনে নেওয়া ভালো। বাংলাদেশে ইতিমধ্যে সীমিত পরিসরে থ্রিজি নেটওয়ার্ক চালু হয়েছে। তাই স্মার্টফোন কেনার আগে এটি থ্রিজি সমর্থিত কি না তাও দেখে নেওয়া ভালো।

ইন্টারনেট প্যাকেজ
একেক মোবাইল অপারেটরের একেক ধরনের ইন্টারনেট প্যাকেজ রয়েছে। ব্যবহারের পরিমাণ কী হতে পারে, তা বিবেচনা করে পছন্দসই প্যাকেজ সাবক্রাইব করুন। এসএমএস বা কাস্টমার কেয়ারে ফোন করে ইন্টারনেট প্যাকেজ সাবক্রাইব করতে পারেন।

ইন্টারনেট সেটিং
মোবাইলে ইন্টারনেট সেটিং ঠিক আছে কি না সেটা নিশ্চিত হওয়া জরুরি। বাজারের অধিকাংশ মোবাইলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে বিভিন্ন অপারেটরের ইন্টারনেট সেটিং করা থাকে। আবার ইন্টারনেট প্যাকেজ কেনার পর অনেক অপারেটর এসএমএসে থেকে ইন্টারনেট সেটিং পাঠিয়ে দেয়। এটি সেভ করে হ্যান্ডসেট রিস্টার্ট দিলে ইন্টারনেট চালু হয়ে যাবে। যদি মোবাইলে ইন্টারনেট সেটিংস ঠিক করা না থাকে, তাহলে ম্যানুয়ালি সেটা ঠিক করে নেওয়া যায়।

গ্রামীণফোন
এ ক্ষেত্রে গ্রামীণফোনের সেটিংস পেতে মেসেজ অপশন থেকে টাইপ করুন All এবং পাঠিয়ে দিন ৫০০০ নম্বরে। আর ম্যানুয়ালি সেট করতে চাইলে ইন্টারনেট অপশনে গিয়ে আপনাকে নিচের পদ্ধতি অনুযায়ী প্রোফাইল তৈরি করতে হবে-
Profile/Settings Name : GP-WAP
APN (access point name) : gpwap
WAP Gateway (Proxy) IP : 10.128.1.2
WAP Gateway (Proxy) port : 8080
Data Bearer : GPRS

বাংলালিংক
বাংলালিংকের সেটিংস পেতে ১২১ নম্বরে কল করে কাস্টমার কেয়ার এজেন্টের সঙ্গে কথা বলতে হবে। অথবা ইন্টারনেট অপশনে গিয়ে সেটিং করতে হবে এভাবে-
Profile/Settings Name : blweb
APN (access point name) : blweb
WAP Gateway (Proxy) IP : 10.10.55.34
WAP Gateway (Proxy) port : 8799
Protocol : http

রবি
রবির সেটিংস পেতে মেসেজ অপশন থেকে টাইপ করুন wap এবং পাঠিয়ে দিন ১২২৭ নম্বরে। আর ম্যানুয়ালি করতে চাইলে ইন্টারনেট অপশনে গিয়ে প্রোফাইল তৈরি করতে হবে নিম্নরূপে-
Profile/Settings Name : Robi-WAP
APN (access point name) : wap
WAP Gateway (Proxy) IP : 10.16.18.77
WAP Gateway (Proxy) port : 9028

টেলিটক
টেলিটকের সেটিংস পেতে মেসেজ অপশন থেকে টাইপ করুন reg এবং পাঠিয়ে দিন ১১১ নম্বরে। আর নিজে নিজে সেটিং করতে চাইলে ইন্টারনেট অপশনে গিয়ে প্রোফাইল তৈরি করতে হবে এভাবে-
Profile/Settings Name : T-Talk WAP
APN (access point name) : wap
WAP Gateway (Proxy) IP : 192.168.145.101
WAP Gateway (Proxy) port : 9201

এয়ারটেল
এয়ারটেলে সিমকার্ড থাকা অবস্থায় ফোন চালু করলেই স্বয়ংক্রিয়ভাবে ইন্টারনেট সেটিংস আসে এবং তা সেভ করলেই হয়ে যায়।

সিটিসেল
সিটিসেল মোবাইল ফোনে ইন্টারনেট সেটিং বিল্ট-ইন থাকে। যদি কোনো সমস্যা দেখা দেয়, তাহলে কাস্টমার কেয়ারে যোগাযোগ করতে হবে।

ব্রাউজার নির্বাচন
ইন্টারনেট সমর্থিত প্রতিটি মোবাইলেই নিজস্ব ব্রাউজার থাকে। তবে মোবাইল থেকে ইন্টারনেট ব্যবহারের সবচেয়ে ভালো ও সুবিধাজনক ব্রাউজার হলো ‘অপেরা মিনি’। এ ব্রাউজার থেকে কোনো ওয়েবসাইটে লগ-অন করলে তা আগে কমপ্রেস করে। ফলে অল্প ডাটা খরচ করেই পেজটি লোড হয়। এটি ওয়েবসাইটের প্রায় ৯০ শতাংশ ডাটা কমিয়ে দেয়, ফলে দ্রুত ব্রাউজ করা যায়। এর সবচেয়ে বড় সুবিধা হলো, যেসব মোবাইলের হার্ডওয়্যার কনফিগারেশন নিম্নমানের, সেসব মোবাইলেও এটি ব্যবহার করা যায়। এ ছাড়া মাল্টি-ট্যাব ব্যবহারের সুবিধা, আলাদা ডাউনলোডার, হিস্ট্রি থেকে ওয়েবপেজ ব্রাউজ করার সুবিধা, ওয়েবপেজ সেইভ করে রাখার সুবিধা তো আছেই।
অন্যান্য মোবাইল ইন্টারনেট ব্রাউজারের মধ্যে মজিলা, ডলফিন, মাক্সথন, অ্যাপলের সাফারি, ইউসি, বোল্ট ব্রাউজারও বেশ জনপ্রিয়। হ্যান্ডসেট বা অপারেটিং সিস্টেমভেদে এসব ব্রাউজারের আলাদা সংস্করণ রয়েছে। আপনার হ্যান্ডসেটের অপারেটিং সিস্টেম অনুয়ায়ী ব্রাউজারটি ডাউনলোড ও ইনস্টল করে ব্যবহার করতে পারেন।

সামাজিক যোগাযোগ সাইট ব্যবহার
ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের মধ্যে অনেকেই ফেইসবুক, টুইটার কিংবা গুগল প্লাসের মতো সামাজিক যোগাযোগ সাইট ব্যবহার করেন। এসব সাইট ব্যবহারের জন্য রয়েছে নানা রকম অ্যাপস। অ্যাপসগুলোর মাধ্যমে স্ট্যাটাস আপডেট, চ্যাটিং, ফটো শেয়ারিং সবই করা যায়। আপনার মোবাইলের নিজস্ব অ্যাপ স্টোর থাকলে সেখান থেকে অথবা অন্য কোনো অ্যাপ স্টোর থেকেও প্রয়োজনীয় সামাজিক যোগাযোগ সাইটের অ্যাপসটি ডাউনলোড করে ব্যবহার করতে পারেন।

চ্যাটিং ও ভিডিও কল সুবিধা
অনেকে যোগাযোগের জন্য চ্যাটিং ও ভিডিও কলিং অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করে থাকেন। এ জন্য আলাদা আলাদা অ্যাপ্লিকেশন পাওয়া যায়। রয়েছে ফেইসবুক মেসেঞ্জার, ই-বাডি, নিমবাজ, মিগ৩৩, গুগল টক, স্কাইপ, হোয়াইটসঅ্যাপ, ফ্রিং প্রভৃতি অ্যাপ্লিকেশন।
অ্যাপগুলোর মাধ্যমে টেক্সট চ্যাট, ভিডিও এবং ভয়েস কল সুবিধা পাওয়া যায়। ই-বাডি, নিমবাজ, ফ্রি, হোয়াইটস অ্যাপের মাধ্যমে ফেইসবুক, গুগল টক, ইয়াহু, এমএসএন, এআইএম, আইসিকিউ, মাইস্পেস-এর বন্ধুদের সঙ্গে এক জায়গায়ই যুক্ত হওয়া যায় এবং তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা যায়।
স্কাইপের মাধ্যমেও ফেইসবুক ব্যবহারের সুযোগ রয়েছে। এসব সুবিধাই পাওয়া যায় বিনামূল্যে। তবে অ্যাপসের মাধ্যমে সেলফোন অথবা টেলিফোনে কল করতে অনেক ক্ষেত্রে নির্দষ্টি কলচার্জ দিতে হয়। এ ছাড়া কিছু কিছু অ্যাপসের ভিডিও কলের ক্ষেত্রে থ্রিজি নেটওয়ার্কের প্রয়োজন হতে পারে।

 

Comments

comments

About অ্যাডমিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*