প্রচ্ছদ > তথ্যপ্রযুক্তি > জেনে রাখুন > মোবাইলের নম্বর না পাল্টে অপারেটর বদল শিগগির
মোবাইলের নম্বর না পাল্টে অপারেটর বদল শিগগির

মোবাইলের নম্বর না পাল্টে অপারেটর বদল শিগগির

মোবাইল ফোনের নম্বর পরিবর্তন না করে অন্য অপারেটরের সেবা নেওয়ার সুযোগ (এমএনপি) নির্ধারিত সময়েই পাবেন গ্রাহকেরা। আগামী জানুয়ারি বা ফেব্রুয়ারিতে এমএনপি সুবিধা দিতে নীতিমালা তৈরি করে কাজ শুরু করেছিল সরকার। এমএনপি নীতিমালায় ইতিমধ্যে সায় দিয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়। এর আগে গত সেপ্টেম্বরে ওই নীতিমালায় অনুমোদন দেয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়।

গতকাল বুধবার রাজধানীর একটি হোটেলে সাংবাদিকদের এ তথ্য নিশ্চিত করে ডাক, তার ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম বলেন, ‘অতি শিগগিরই এমএনপি চালু হতে যাচ্ছে। আমাদের কাছ থেকে প্রধানমন্ত্রীর সম্মতির পর অর্থ মন্ত্রণালয়ের যে অনুমতি চাওয়া হয়েছে, তা-ও দিয়ে দেওয়া হয়েছে। এখন বিটিআরসি সেবাটি চালুর বিষয়ে মোবাইল অপারেটরদের জানিয়ে দেবে।’

এর আগে গত সেপ্টেম্বরে প্রতিমন্ত্রী জানিয়েছিলেন, আগামী বছরের শুরুতে জানুয়ারি বা ফেব্রুয়ারিতে গ্রাহকেরা এমএনপি সেবা পেতে শুরু করবেন। ডিসেম্বরের মধ্যে এমএনপি-প্রক্রিয়া চূড়ান্ত করার আশাবাদ প্রকাশ করেছিলেন তিনি।

মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, এমএনপি-সুবিধা পেতে গ্রাহকের কাছ থেকে ৩০ টাকা আদায়ের প্রস্তাবেও অনুমোদন দিয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়। সূত্র জানায়, অর্থ মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন পাওয়ায় এমএনপি বাস্তবায়নের কাজ অনেকটা এগিয়ে গেল। এখন এমএনপি সেবা পরিচালনা করতে বিটিআরসি একটি প্রতিষ্ঠানকে নিয়োগ দেবে।

এমএনপি চালু হলে মোবাইল গ্রাহকেরা তাঁদের প্রয়োজন ও পছন্দ অনুযায়ী যেকোনো মোবাইল কোম্পানির সেবা নিতে পারবেন। সেবায় সন্তুষ্ট না হলে কিংবা অন্য কোম্পানির বিশেষ সেবা নিতে চাইলে নম্বর পরিবর্তন না করেই যেকোনো কোম্পানির সেবা গ্রহণের সুযোগ পাবেন গ্রাহকেরা। টেলিযোগাযোগ খাতের বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, এতে কোম্পানিগুলোর মধ্যে প্রতিযোগিতা ও সেবার মান বাড়বে। এ ক্ষেত্রে গ্রাহকদের সবচেয়ে বড় সুবিধা হবে অপারেটর নির্ধারণে তাঁদের ‘স্বাধীনতা’। তাঁদের মতে, নম্বর ঠিক রেখে নেটওয়ার্ক বদল গ্রাহকদের স্বাধীনতা।

এমএনপি-সুবিধা নিতে গ্রাহকদের সর্বোচ্চ খরচ হবে ৩০ টাকা। আবেদনের তিন দিনের মধ্যে গ্রাহককে এ সেবা দিতে হবে এবং কোনো গ্রাহক যদি একবার অপারেটর বদলের পর আবারও অপারেটর বদল করতে চান, তাহলে তাঁকে ৪৫ দিন অপেক্ষা করতে হবে। অর্থাৎ, কমপক্ষে ৪৫ দিন অপারেটরের সেবা নিতে হবে। প্রিপেইড ও পোস্ট পেইড উভয় ধরনের গ্রাহকই এমএনপি-সুবিধা পাবেন।

Comments

comments

Comments are closed.