প্রচ্ছদ > তথ্যপ্রযুক্তি > গেমস > মহাশূন্যে অ্যাংরি বার্ডস
মহাশূন্যে অ্যাংরি বার্ডস

মহাশূন্যে অ্যাংরি বার্ডস

পৃথিবীর বিভিন্ন জায়গায় বিভিন্ন সময়ে লড়াই শেষে অ্যাংরি বার্ডস এবার মহাশূন্যে। সঙ্গে বরাবরের মতো আছে চিরশত্রু ছোট ছোট সবুজ শূকরছানা। ফিনল্যান্ডের গেইম নির্মাতা রোভিও সফটওয়্যার অ্যাংরি বার্ডসের এ গেইম বাজারে ছেড়েছে। ২০০৯ সালে মূলত আইফোন অ্যাপ্লিকেশন হিসেবে তৈরি হলেও জনপ্রিয়তার কারণে পরে সব ধরনের মোবাইল ও পিসির জন্যও তৈরি করা হয় গেইমটি।
নতুন পর্বের গল্পে খুব একটা হেরফের নেই। দুষ্ট শূকরের দল বারবার চুরি করে নিয়ে যায় পাখির ডিম। আর পাখিগুলো রেগেমেগে নিজেদের গুলতিতে বেঁধে নিজেরাই গুলি হয়ে ছুটে যায় শূকরদের ঘায়েল করতে। হঠাৎ ঘটল এক বিপত্তি- এভাবে শূকরদের তাড়া করতে গিয়েই হঠাৎ পাখিগুলো ওয়ার্মহোলের মধ্য দিয়ে ঢুকে পড়ল মহাকাশে!
অ্যাংরি বার্ডসের প্রথম গেইমটি ছিল সাধারণ। একে অসাধারণ করার জন্য বিভিন্ন উদ্যোগ নেয় রোভিও; যেমন- হ্যালোইন লেভেল, ক্রিসমাস লেভেল। পরে সব নিয়ে হলো ‘অ্যাংরি বার্ডস সিজনস’। এরপর ‘রিও’ অ্যানিমেশন ফিল্মের চরিত্রদের সংযুক্ত করে তৈরি হলো ‘অ্যাংরি বার্ডস রিও’। সব গেইমই ছিল বেশ উজ্জ্বল, রঙচঙে গ্রাফিকসে ভরপুর। কিন্তু ‘অ্যাংরি বার্ডস স্পেস’ এদিক থেকে কিছুটা ব্যতিক্রম। আগের পর্বগুলোর মতো এতে রং আর আনন্দের ছড়াছড়ি নেই; তুলনামূলক গাঢ় রং, কালচে পাথর আর বরফ ব্যবহার করে এতে কিছুটা গম্ভীর ভাব আনা হয়েছে। তবে এতে গেইমের মজা কমেনি; বরং নতুন মাত্রা পেয়েছে। স্পেসে পাখি ও শূকরগুলোর নিজস্ব গ্রহ রয়েছে। মাঝে শূন্য। গ্রহের মাধ্যাকর্ষণশক্তি থাকলেও শূন্যস্থানে সব কিছু ভাসমান। অর্থাৎ পাখিগুলো যখন শূন্যস্থানে থাকবে, তখন তারা ভেসে ওপরের দিকে চলে যেতে চাইবে, আবার যখন তারা কোনো গ্রহের আকর্ষণে পড়বে, তখন তার দিকে নেমে আসতে শুরু করবে। এই দুই ধরনের ঘটনা একসঙ্গে ঘটলে নতুন ধরনের ‘মজা’ পাওয়া যাবে। বিশেষ করে মাধ্যাকর্ষণশক্তি ব্যবহার করে পাখিগুলোর গতিপথ নির্ণয়ের কাজটা যেমন কঠিন, তেমনি মজার। আগের মতো শুধু গুলতি ছুড়লেই হবে না; সতর্কভাবে অবস্থান, দূরত্ব মেপে তবেই শূকরদের মারতে হবে। এই পর্বে গুলতি ছুড়ে মারার আগে পাখিদের গতিপথ দেখানোর নতুন একটি সুবিধা চালু করা হয়েছে।
পাখিদের বেশভূষায়ও বেশ পরিবর্তন এসেছে। যে হলুদ পাখিগুলো আগে তীব্র বেগে ছুটে যেতে পারত, তারা বেগুনি রঙের স্পেসস্যুট পরে মিসাইলের মতো গতি নিয়ে হাজির হয়েছে। কালো রঙের বোমারু পাখিদের পরনে রয়েছে কমলা স্পেসস্যুট। বড় লাল পাখিগুলোকে সবুজ পোশাক পরানো হয়েছে। খুদে খুদে নীল পাখি, যেগুলো আগে তিন ভাগ হয়ে ছড়িয়ে পড়ত, সেগুলোর মাথার ওপর লাগানো হয়েছে অ্যান্টেনা। এ ছাড়া ‘আইস বার্ড’ নামের নতুন একটি পাখি যুক্ত করা হয়েছে, যা বস্তুকে বরফে পরিণত করতে পারে।
আগের পর্বগুলোতে গেইমপ্লে ও লেভেল একই ধরনের হয়ে যাওয়ার যে অভিযোগ উঠেছিল, স্পেস দিয়ে যেন তার উপযুক্ত জবাব দিল রোভিও। বেশির ভাগ গেইমারই একে অ্যাংরি বার্ডসের সবচেয়ে সেরা গেইম বলছেন। পাখিদের নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে লেভেল শেষ করার নতুন নতুন রাস্তা বের করার যে সুযোগ এতে দেওয়া হয়েছে, তা নিঃসন্দেহে সবাইকে আরেকবার অ্যাংরি বার্ডসের প্রেমে ফেলবে। মোট ৬০টি লেভেলে বিভক্ত দুনিয়া কাঁপানো এই গেইমটি পাওয়া যাচ্ছে আইওএস, অ্যান্ড্রয়েড ফোন, উইন্ডোজ ও ম্যাক প্ল্যাটফর্মের জন্য। স্যামসাং গ্যালাক্সি ফোনের জন্য যুক্ত করা হয়েছে অতিরিক্ত ৩০টি লেভেল।

Comments

comments

Comments are closed.