প্রচ্ছদ > কেনাকাটা > গ্রামের মানুষের জন্য কমদামে আধুনিক ফ্ল্যাট!
গ্রামের মানুষের জন্য কমদামে আধুনিক ফ্ল্যাট!

গ্রামের মানুষের জন্য কমদামে আধুনিক ফ্ল্যাট!

গ্রামের গরিব মানুষকে আধুনিক নাগরিক সুবিধাসহ ফ্ল্যাট দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। শুধু ফ্ল্যাট নয়, থাকবে বাজার, বায়োগ্যাস প্লান্ট, নিরাপদ পানি, সৌরবিদ্যুৎ, গবাদিপশু রাখার স্থান। মোটা দাগে একটি আবাসন কমপ্লেক্স নির্মাণ করা হবে, যা পল্লি জনপদ নামে পরিচিত হবে। পরীক্ষামূলকভাবে ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট, রংপুর, খুলনা, বরিশাল ও রাজশাহী বিভাগের সাতটি উপজেলার সাতটি গ্রামে পল্লি জনপদ গড়ে তোলা হবে।
কোন কোন গ্রামে এই পল্লি জনপদ হবে, তা চূড়ান্ত করা হয়নি। মূলত যেসব এলাকায় কৃষিজমি নষ্ট করে ঘরবাড়ি নির্মাণের প্রবণতা বেশি এবং প্রবাসী-আয় তুলনামূলক বেশি আসে, এমন গ্রামই নির্বাচন করা হবে।
কৃষিজমি রক্ষার পাশাপাশি গ্রামের দরিদ্র মানুষকে আধুনিক জীবনধারণ সুবিধা দিতে এই পল্লি জনপদ তৈরি করা হবে। একটি পল্লি জনপদে একটি বহুতল ভবনে ২৭২ ফ্ল্যাট থাকবে। যেখানে একসঙ্গে ২৭২টি পরিবার থাকতে পারবে। ৩০ শতাংশ অর্থ অগ্রিম পরিশোধ করে এ ধরনের ফ্ল্যাটের মালিক হতে পারবেন ওই এলাকার মানুষ।
আগামী ২০১৭ সালের জুন মাসের মধ্যে আধুনিক সুবিধাসংবলিত এই সাতটি জনপদ নির্মাণ করা হবে। প্রথমে পরীক্ষামূলকভাবে এই জনপদ তৈরি করা হবে। সফল হলে তা সারা দেশে বিস্তৃত করা হবে।
জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় এই প্রকল্পটি পাস করা হয়। এই প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ৪২৪ কোটি ৩৪ লাখ টাকা। বগুড়ার পল্লী উন্নয়ন একাডেমির সেন্টার ফর ইরিগেশন অ্যান্ড ওয়াটার ম্যানেজমেন্ট প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে।
পরিকল্পনা কমিশন সূত্রে জানা গেছে, ফ্ল্যাটগুলোর প্রতি বর্গফুটের মূল্য ধরা হয়েছে এক হাজার ৬০০ টাকা। ৯১৫, ৭১০, ৪৬০ ও ৩৬৫ বর্গফুট—এ ধরনের আয়তনের ফ্ল্যাট হবে। আর প্রাথমিকভাবে ৩০ শতাংশ অর্থ পরিশোধ করে ফ্ল্যাটে উঠতে পারবেন ক্রেতারা। ফ্ল্যাটে ওঠার পর পরবর্তী ১৫ বছরে বাকি অর্থ পরিশোধ করতে হবে। তবে সুবিধাভোগী বা ফ্ল্যাট কিনতে আগ্রহীদের কীভাবে নির্বাচন করা হবে, তা এখনো ঠিক করা হয়নি। এ জন্য একটি নীতিমালা তৈরি করা হবে। চলতি অর্থবছরে প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য ১৪৫ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে।

Comments

comments

Comments are closed.