প্রচ্ছদ > জেনে নিন > ঢাকা-শিলং-গৌহাটি রুটে বাস চালু ২২ মে
ঢাকা-শিলং-গৌহাটি রুটে বাস চালু ২২ মে

ঢাকা-শিলং-গৌহাটি রুটে বাস চালু ২২ মে

কাল থেকে ঢাকা-শিলং-গৌহাটি রুটে কাল থেকে পরীক্ষামূলক বাস চলাচল শুরু হচ্ছে। এ নিয়ে এরই মধ্যে দুই দেশের সরকারি পর্যায়ে সব ধরনের প্রস্তুতি শেষ হয়েছে। প্রথম পরীক্ষামূলক বাসটি যাবে ঢাকা থেকে। ঢাকা থেকে সিলেট হয়ে গৌহাটি পৌঁছবে বিআরটিসির বাস। সেখানে ভারতের কর্মকর্তারা যাত্রীদের অভ্যর্থনা জানাবেন। মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্টরা আশা করছেন, নতুন রুটটি চালু হলে ভারতের সঙ্গে সিলেট হয়ে সরাসরি যোগাযোগের পথ সুগম হবে।
ঢাকা-শিলং-গৌহাটি রুটে পরীক্ষামূলক বাস চলাচলসহ বাংলাদেশকে ভারত, ভুটান ও নেপালের সড়কপথে যুক্ত করার কার্যক্রম দ্রুত এগিয়ে নিতে সোমবার নয়াদিল্লি সফরে যান বাংলাদেশের সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। সেখানে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের সড়ক পরিবহন, মহাসড়ক ও নৌপরিবহনমন্ত্রী নিতিন গাদকারির সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করেন তিনি। এ বৈঠক থেকে ঢাকা-শিলং-গৌহাটি রুটে শুক্রবার থেকে পরীক্ষামূলকভাবে বাস চলাচল শুরুর বিষয় চূড়ান্ত হয়। বৈঠকে চার দেশের মধ্যে সড়কপথে যোগাযোগের বিষয়টিও গুরুত্ব সহকারে আলোচনা হয়।
শুক্রবার থেকে পরীক্ষামূলক বাস চলাচল চালু থাকা অবস্থায়ই সড়কপথে চার দেশকে পরস্পরের সঙ্গে সংযুক্ত করতে চুক্তি স্বাক্ষরের জন্য আগামী মাসে চার দেশের সড়ক পরিবহনমন্ত্রীরা ভুটানের রাজধানী থিম্পুতে মিলিত হবেন।
এদিকে মঙ্গলবার পশ্চিমবঙ্গের মুখ্য প্রশাসনিক ভবন কলকাতার নবান্নে বাস চালুর কথা জানান পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। ৬ জুন সল্টলেকের আন্তর্জাতিক বাস টার্মিনাল থেকে বেসরকারি পরিবহন সংস্থার প্রথম বাস ছাড়বে ঢাকা হয়ে আগরতলার উদ্দেশে।
অন্যদিকে জুনের প্রথম দিকে বাংলাদেশ সফরে যাবেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সেখানে মোদি এবং বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিতিতে যেসব চুক্তি এবং সমঝোতাপত্র স্বাক্ষরিত হওয়ার কথা, তার মধ্যে রয়েছে কলকাতা-ঢাকা-আগরতলা সরাসরি বাস যোগাযোগ, চট্টগ্রামের রামগড় থেকে ত্রিপুরার সাব্রুম পর্যন্ত ফেনী ব্রিজ, গৌহাটি-শিলং-ঢাকা বাস পরিসেবা এবং বাংলাদেশ-ভুটান-ভারত-নেপাল মোটর ভেহিকেলস চুক্তির মতো গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। ভারতের প্রধানমন্ত্রীর দফতর চাইছে, ভারত-বাংলাদেশ দুই দেশের প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে কলকাতা-ঢাকা-আগরতলা বাস পরিসেবা চালু হোক। শুধু তা-ই নয়, ভারতের পশ্চিমবঙ্গ, ত্রিপুরা এবং বাংলাদেশের মানুষ যাতে ঐতিহাসিক এ ঘটনার সাক্ষী থাকতে পারেন, তার জন্য বিভিন্ন জায়গায় জায়ান্ট স্ক্রিন লাগানোর পরিকল্পনা করেছে কেন্দ্রীয় পরিবহন ও সড়ক মন্ত্রণালয়।
ভারতীয় পরিবহন কর্তাদের মতে, কলকাতা থেকে ঢাকা হয়ে বাস পরিসেবা চালু হলে ১৫ ঘণ্টার মধ্যে আগরতলায় পৌঁছানো যাবে। আপাতত কলকাতা থেকে সপ্তাহে তিন দিন বাসটি ছাড়বে। আগরতলা থেকেও ছাড়বে সপ্তাহে তিন দিন।

Comments

comments

Comments are closed.