প্রচ্ছদ > জেনে নিন > অনলাইনে জাতীয় পরিচয়পত্রসহ ১০ সেবা
অনলাইনে জাতীয় পরিচয়পত্রসহ ১০ সেবা

অনলাইনে জাতীয় পরিচয়পত্রসহ ১০ সেবা

অনলাইনে ভোটার হওয়া থেকে শুরু করে জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্য সংশোধনসহ ১০টি সেবা সেপ্টেম্বর থেকেই চালু করতে চায় নির্বাচন কমিশন। এসব সেবা চালু হলে একজন ভোটার অনলাইনে তার ভোটকেন্দ্রের তথ্য জানতে পারবেন, প্রয়োজনে ব্যক্তিগত তথ্য সংশোধন করতে পারবেন। ঠিকানা বা ভোটার এলাকার পরিবর্তন হলে তাও ঠিক করা যাবে।

 
কেউ নতুন জাতীয় পরিচয়পত্র চাইলে বা ছবি পরিবর্তন করতে চাইলে অনলাইনেই আবেদন করতে পারবেন। সেই আবেদনের অগ্রগতি জানা, পরিচয়পত্র সম্পর্কিত সাধারণ জিজ্ঞাসা, ফরম ডাউনলোড- সবই হবে অনলাইনে।
গত রোববার নির্বাচন কমিশনের সভায় এসব বিষয়ে নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়। অনলাইনে ‘তথ্যের নিরাপত্তা’ নিশ্চিত করার বিষয়ে বিশেষজ্ঞদের মতামত নিতে জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগ শিগগিরই একটি জাতীয় কর্মশালারও আয়োজন করবে।
অনুবিভাগের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সুলতান মো. সালেহ উদ্দিন বলেন, “ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, বুয়েট, বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলসহ প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞদের নিয়ে কর্মশালা করব আমরা। তাদের মতামত জেনে সেপ্টেম্বরের মধ্যে অনলাইন সেবা চালু করতে পারব আশা করি।”
সংসদ কাজে ইসির দায়িত্বপ্রাপ্ত আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এর আগে জাতীয় সংসদে জানিয়েছিলেন, অনলাইনে জাতীয় পরিচয়পত্রের বিভিন্ন সেবা দেয়া হবে ভার্চুয়াল প্রাইভেট নেটওয়ার্ক [ভিপিএন]-এর মাধ্যমে। এ প্রক্রিয়া চালু হলে সব উপজেলা কার‌্যালয় থেকে একদিনে জাতীয় পরিচয়পত্র সংক্রান্ত সেবা দেয়া সম্ভব হবে।
সুলতান মো. সালেহ উদ্দিন জানান, অনলাইনে নতুন ভোটার হতে চাইলে ইসির ওয়েবসাইটে গিয়ে নির্ধারিত ফরম (নিবন্ধন ফরম ২) পূরণ করতে হবে। ফরম পূরণ হলে আবেদনকারীর মোবাইল ফোনে এ বিষয়ে একটি এসএমএস যাবে।
“এরপর পূরণ করা ফরমের প্রিন্টেড কপি এবং প্রয়োজনীয় অন্যান্য নথি সংশ্লিষ্ট নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়ে নির্ধারিত তারিখের মধ্যে জমা দিতে হবে। সেখানে আবেদনকারীর বায়োমেট্রিক ডাটা (ছবি, আঙুলের ছাঁপ, সাক্ষর) নেয়া হবে এবং আবেদনকারীর স্বাক্ষর করা নিবন্ধন ফরমের স্ক্যান কপি সংরক্ষণ রাখা হবে।”
সাধারণ মানুষের দুর্ভোগ কমিয়ে স্বল্প সময়ে সেবা দিতেই এ উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে বলে মহাপরিচালক জানান।
বর্তমানে দেশের ১৬ কোটি মানুষের মধ্যে ৯ কোটি ২০ লাখের মতো ভোটার। তাদের প্রত্যেককে সাদা কাগজে কয়েকটি তথ্য সম্বলিত একটি লেমিনেটেড জাতীয় পরিচয়পত্র দেওয়া হয়েছে। আগামী বছর থেকে ভোটারদের উন্নতমানের ‘স্মার্টকার্ড’ দেয়ার একটি পরিকল্পনাও সরকারের রয়েছে।
ইতোমধ্যে ভোটার তালিকা হালনাগাদের কাজ চলছে দেশজুড়ে। এবার আরো ৪৬ লাখের মতো নতুন ভোটার হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
জরুরি ভিত্তিতে জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন ও হারানো পরিচয়পত্র পুনরায় তুলতে ইসির জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগের কার্যালয়ে [আগারগাঁও ইসলামী ফাউন্ডেশন ভবন] ওয়ান স্টপ সার্ভিস চালু রয়েছে। সেখানে ১০টি বুথে প্রতিদিন গড়ে দেড় হাজার মানুষ এ সেবা পাচ্ছেন বলে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

Share and Enjoy !

0Shares
0 0

Comments

comments

Comments are closed.