প্রচ্ছদ > শিক্ষা > ভর্তি বিজ্ঞপ্তি > ঢাকার স্কুলে ভর্তি এবার অনলাইনে
ঢাকার স্কুলে ভর্তি এবার অনলাইনে

ঢাকার স্কুলে ভর্তি এবার অনলাইনে

জানুয়ারি মাস আসার আগেই রাজধানীর স্কুলগুলোতে শুরু হয়ে গেছে ভর্তিযুদ্ধ। শিশুদের সঙ্গে তাদের বাবা-মায়ের চোখের ঘুম হারাম হয়ে গেছে। সবার উৎকণ্ঠা- পছন্দের স্কুলে সন্তানদের ভর্তি করাতে পারবেন তো? ফলে অভিভাবকরা ছুটছেন এক স্কুল থেকে আরেক স্কুলে। তবে অভিভাবকদের দৌড়াদৌড়ির নিরসন ঘটাতেই শিক্ষা মন্ত্রণালয় যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এবারই প্রথম রাজধানীর ৩০টি সরকারি স্কুলে ভর্তির ক্ষেত্রে আবেদন করতে হবে অনলাইনে। এ ছাড়া কয়েকটি নামি-দামি বেসরকারি স্কুলও ইতিমধ্যে অনলাইনে ভর্তির আবেদন-প্রক্রিয়া শুরু করেছে।
গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে রাজধানীর সরকারি স্কুলে ভর্তি নীতিমালা নিয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব (মাধ্যমিক) মো. জাকির হোসেন, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা (মাউশি) অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ফাহিমা খাতুনসহ উচ্চপর্যায়ের শিক্ষা কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। এই বৈঠকে বেশ কিছু নতুন সিদ্ধান্তও নেওয়া হয়। যদিও এসব সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের চূড়ান্ত অনুমোদন লাগবে। সরকারি ৩০টি স্কুলে ভর্তি হতে হলে এবার স্কুলের ওয়েবসাইটে গিয়ে অনলাইনে আবেদন করতে হবে। ফরমের মূল্য পরিশোধ করতে হবে ‘বিকাশের’ মাধ্যমে। এবার ফরমের মূল্য ১০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১৫০ টাকা করা হয়েছে। বেসরকারি স্কুলগুলোকেও এই নিয়ম-নীতি অনুসরণ করতে বলা হয়েছে। সরকারি স্কুলে কবে থেকে ফরম বিতরণ শুরু হবে তা মাউশি অধিদপ্তরকে আগামী সপ্তাহে এক বৈঠকের মাধ্যমে ঠিক করার জন্য বলা হয়েছে।
এ বিষয়ে মাউশির উপপরিচালক (মাধ্যমিক) এ কে এম মোস্তাফা কামাল বলেন, ‘আজ (গতকাল মঙ্গলবার) ভর্তিসংক্রান্ত একটি বৈঠক মন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে। সেখানে ভর্তির বিষয়ে নতুন কিছু সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সিদ্ধান্তগুলো চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য পাঠানো হয়েছে। অনুমোদন পেলে আগামী রবিবারের মধ্যেই নতুন সিদ্ধান্ত সকলকে জানিয়ে দেওয়া সম্ভব হবে। আর আগামী সপ্তাহে স্কুলের প্রধান শিক্ষকদের নিয়ে বসে সরকারি স্কুলে ফরম বিতরণ, লটারি ও পরীক্ষার তারিখ নির্ধারণ করা হবে। বেসরকারি স্কুলগুলো তাদের মতো করে তারিখ নির্ধারণ করবে। তারা আগেভাগেই ভর্তিপ্রক্রিয়া শুরু করলেও সকলকে জারীকৃত নীতিমালার মধ্যেই থাকতে হবে।’
জানা যায়, এবারের ভর্তি মৌসুমে ঢাকায় সবার আগে ভর্তিপ্রক্রিয়া শুরু করেছে ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজ। গত সোমবার থেকে তারা অনলাইনে প্রথম শ্রেণির ভর্তির আবেদন-প্রক্রিয়া শুরু করেছে। তবে নীতিমালায় ফরমের মূল্য ১৫০ টাকা নির্ধারণ করা হলেও ভিকারুননিসা নিচ্ছে ২০০ টাকা করে। এ ছাড়া রাজধানীর আরো বেশ কিছু নামি-দামি স্কুলও ইতিমধ্যে ভর্তি বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে।
মাউশি অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, এবার স্কুলে ভর্তির ক্ষেত্রে ফরম সংগ্রহের সেই ভোগান্তি আর থাকছে না। ২০১৫ শিক্ষাবর্ষে রাজধানীর সরকারি স্কুলে ভর্তিতে অনলাইনে আবেদন করতে হবে। বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো যেন অনলাইনে ভর্তিপ্রক্রিয়া শুরু করে সেই নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। কিন্তু অনেক বেসরকারি স্কুলই এবার থেকে অনলাইনে আবেদন-প্রক্রিয়া শুরু করতে পারবে না বলে জানিয়েছে।
রাজধানীর মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ শাহান আরা বেগম বলেন, ‘আগামী ১৭ নভেম্বর থেকে আমাদের ফরম বিতরণ শুরু হবে। দুই-এক দিনের মধ্যেই বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হবে। আমরা এবার হাতে হাতেই ফরম দেব। ২০১৬ সাল থেকে অনলাইনে ভর্তিপ্রক্রিয়া শুরু কব। তবে মন্ত্রণালয় যদি আমাদেরকে আগে থেকে জানাত তাহলে আমরা যথাযথ প্রস্তুতি নিয়ে এবারই অনলাইনে ভর্তিপ্রক্রিয়া শুরু করতে পারতাম।’
জানা যায়, অভিভাবকরা তাঁদের সন্তানদের শুরুতেই একটি নামকরা স্কুলে দিতে চান। একবার ভর্তি করতে পারলে এসএসসি পর্যন্ত নিশ্চিত থাকতে পারবেন- এমনটাই তাঁদের ভাবনা। তবে অভিভাবকরা চাইলেও সবার পক্ষে নামি-দামি স্কুলে ভর্তি হওয়া সম্ভব নয়। রাজধানীতে ২৪টি সরকারি স্কুল আছে। তবে সেখানে প্রথম শ্রেণি আছে মাত্র ১৩টিতে। এ ছাড়া আগামী বছর থেকে রাজধানীতে আরো ছয়টি সরকারি স্কুল যুক্ত হচ্ছে। নামি-দামি বেসরকারি স্কুল রয়েছে আরো প্রায় ২৫টি। সরকারি-বেসরকারি নামি-দামি স্কুল মিলিয়ে প্রথম শ্রেণিতে ২০ থেকে ২২ হাজার শিক্ষার্থী ভর্তি করা সম্ভব। কিন্তু রাজধানীতে প্রতিবছর প্রথম শ্রেণিতে ভর্তি হয় প্রায় দুই লাখ শিশু। বিপুলসংখ্যক শিক্ষার্থী সীমিতসংখ্যক আসন দখলের জন্য তাই রীতিমতো ভর্তিযুদ্ধে অবতীর্ণ হয়।
মাউশি সূত্রে জানা যায়, রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় অবিস্থত ২৪টি স্কুলকে এবারও এলাকা ভিত্তিতে ‘ক’, ‘খ’ ও ‘গ’- এই তিনটি গ্রুপে ভাগ করা হবে। এলাকা অনুযায়ী ঢাকার নতুন ছয়টি সরকারি স্কুলকে এবার বিভিন্ন গ্রুপে বণ্টন করা হবে। আগামী সপ্তাহে সেই বণ্টনপ্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে। নতুন স্কুলগুলো হচ্ছে আজিমপুর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, হাজারীবাগ শেখ রাসেল সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, মিরপুরের দুয়ারীপাড়া সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ডেমরার আলহাজ হাজী গফুর সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ভাসানটেক সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় এবং উত্তরখানের বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুননেসা মুজিব সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়। একই গুচ্ছের একাধিক স্কুল থেকে ভর্তি ফরম কেউ কিনতে পারবে না। একজন শিক্ষার্থী তিনটি গুচ্ছের প্রতিটি থেকে একটি করে সর্বোচ্চ তিনটি ফরম কিনতে পারবে। যে স্কুলে ভর্তি হতে আগ্রহী সেখান থেকেই ফরম কিনতে হবে। তিন ক্যাটাগরিতে ভাগ করা স্কুলগুলোতে একই দিনে লটারি অনুষ্ঠিত হবে।
‘ক’ গ্রুপের স্কুলগুলো হচ্ছে : গভর্নমেন্ট ল্যাবরেটরি হাই স্কুল, নিউ গভর্মেন্ট গার্লস হাই স্কুল, ইসলামিয়া সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, মিরপুর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, মতিঝিল সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, খিলগাঁও সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, মোহাম্মদপুর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় ও নবাবপুর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়।
‘খ’ গ্রুপের স্কুলগুলো হচ্ছে : মতিঝিল সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়, নারিন্দা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, শেরে বাংলানগর সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়, সরকারি বিজ্ঞান কলেজ সংযুক্ত হাই স্কুল, গভ. মুসলিম হাই স্কুল, বাংলাবাজার সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, ধানমণ্ডি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও ধানমণ্ডি কামরুন্নেসা সরকারি বালিকা বিদ্যালয়।
আর ‘গ’ গ্রুপে রয়েছে : ধানমণ্ডি গভ. বয়েজ হাই স্কুল, টিকাটুলী কামরুন্নেসা সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, তেজগাঁও সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, ঢাকা কলেজিয়েট স্কুল, আরমানীটোলা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, শেরে বাংলানগর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, গণভবন সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় ও তেজগাঁও সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়।
এ ছাড়া দ্বিতীয় ও তৃতীয় শ্রেণিতে গত বছরের মতোই ৫০ নম্বরের এক ঘণ্টার ভর্তি পরীক্ষা নেওয়া হবে। চতুর্থ থেকে অষ্টম শ্রেণিতে ১০০ নম্বরের দুই ঘণ্টার পরীক্ষা নেওয়া হবে। আর জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষার ফলের ভিত্তিতে নবম শ্রেণিতে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে। দ্বিতীয় ও তৃতীয় শ্রেণিতে বাংলা ১৫, ইংরেজি ১৫ ও গণিতে ২০ নম্বর করে মোট ৫০ নম্বরের এক ঘণ্টার এবং অন্যান্য শ্রেণিতে বাংলা ৩০, ইংরেজি ৩০ ও গণিতে ৪০ নম্বর করে মোট ১০০ নম্বরের দুই ঘণ্টার পরীক্ষা নেওয়া হবে।

Share and Enjoy !

0Shares
0 0

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*