প্রচ্ছদ > স্বাস্থ্য > বিশেষজ্ঞ পরামর্শ, > ফরমালিন ও কার্বাইডমুক্ত আম চিনবেন যেভাবে
ফরমালিন ও কার্বাইডমুক্ত আম চিনবেন যেভাবে

ফরমালিন ও কার্বাইডমুক্ত আম চিনবেন যেভাবে

বাজারের অধিকাংশ আমের মধ্যেই ব্যবহার করা হয় ফরমালিন ও কার্বাইড নামের রাসায়নিক পদার্থ। সঠিক সময়ের আগে পাকানো, আকর্ষণীয় রঙ ও পচনরোধ করার জন্যই এক শ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ী এই ফলটিকে বিষাক্ত করে তুলছে। যা খেয়ে কিডনিসহ বিভিন্ন প্রাণঘাতী রোগ হতে পারে। তবে চাইলে দেখে কেনা যায় ফরমালিন ও কার্বাইডমুক্ত আম। জেনে নিন চেনার কিছু উপায়-

১. প্রথমেই লক্ষ্য করুন যে আমের গায়ে মাছি বসছে কি না। কেননা ফরমালিনযুক্ত আমে মাছি বসবে না।

২. আম গাছে থাকা অবস্থায় বা গাছ পাকা আম হলে লক্ষ্য করে দেখবেন যে আমের শরীরে এক রকম সাদাটে ভাব থাকে। কিন্তু ফরমালিন বা অন্য রাসায়নিকে চুবানো আম হবে ঝকঝকে সুন্দর।

৩. কারবাইড বা অন্যকিছুতে পাকানো আম হয় দাগহীন। কেননা আমগুলো কাঁচা অবস্থাতেই পেড়ে ওষুধ দিয়ে-পাকানো হয়। গাছপাকা আমের ত্বকে দাগ পড়বেই।

৪. গাছপাকা আমের ত্বকের রঙে ভিন্নতা থাকবে। গোড়ার দিকে গাঢ রঙ হবে, সেটাই স্বাভাবিক। কারবাইড দেওয়া আমের আগাগোড়া হলদেটে হয়ে যায়, কখনো কখনো বেশি দেওয়া হলে সাদাটে হয়ে যায়।

৫. হিমসাগর ছাড়া আরো কিছু জাতের আম আছে যেগুলো পাকলেও সবুজ থাকে, কিন্তু অত্যন্ত মিষ্টি হয়। গাছপাকা হলে এসব আমের ত্বকে দাগ পড়ে। ওষুধ দিয়ে পাকানো হলে আম থাকে মসৃণ ও সুন্দর।

৬. আম নাকের কাছে নিয়ে ভালো করে শুঁকে কিনুন। গাছ পাকা আম হলে অবশ্যই বোটার কাছে ঘ্রাণ থাকবে। ওষুধ দেওয়া আম হলে তেমন কোনো গন্ধ থাকবে না, কিংবা বিচ্ছিরি বাজে গন্ধ থাকবে।

৭. আম মুখে দেওয়ার পর যদি দেখেন কোনো সৌরভ নেই, কিংবা আমে টক/মিষ্টি কোনো স্বাদই নেই, বুঝবেন যে আমে ওষুধ দেওয়া।

৮. আম কেনার পর কিছুক্ষণ রেখে দিন। এমন কোথাও রাখুন যেখানে বাতাস চলাচল করে না। গাছপাকা আম হলে গন্ধে মৌ মৌ করে চারপাশ। ওষুধ দেওয়া আমে এই মিষ্টি গন্ধ হবেই না।

Share and Enjoy !

0Shares
0 0

Comments

comments

Comments are closed.